কক্সবাজার এল,এ শাখায় ৫ দালালকে ভ্রাম্যমান আদালতের সাজা

কক্সবাজার এল,এ শাখায় ৫ দালালকে ভ্রাম্যমান আদালতের সাজা
কক্সবাজার এল,এ শাখায় ৫ দালালকে ভ্রাম্যমান আদালতের সাজা

কক্সবাজার ভ‚মি অধিগ্রহণ (এল,এ) শাখায় অভিযান চালিয়ে ভ্রাম্যমান আদালত ৫ দালালকে ১ মাস করে সাজা প্রদান করেছে। ১৫ অক্টোবর বিকাল ৩ টার দিকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাখন চন্দ্র স‚ত্র ধর এর নেতৃত্বে এল,এ শাখায় অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় সরকারী কর্মচারীকে সরকারী কাজে বাঁধা প্রদান করার অভিযোগ প্রমাণে তাৎক্ষনিকভাবে সাজা প্রদানে ৫ দালালকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন বলে নিশ্চিত করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাখন চন্দ্র স‚ত্র ধর।
সাজাপ্রাপ্তরা হল, মহেশখালী উপজেলার কালামারছড়া ইউনিয়নের আন্দারঘোনা এলাকার মৃত আব্দুস সমদ এর পুত্র মো আব্দুল নুর, জাগিরঘোনা এলাকার আবুল কাশেম এর পুত্র খোরশেদ আলম, উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়নের মালভিটা এলাকার নুরুল ইসলামের পুত্র আলাউদ্দিন, বালুকিয়া পালং এলাকার মোঃ কাশেম এর পুত্র এসএম দিদারুল আলম সহ টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের উত্তর শিলখালী এলাকার শফিকুল ইসলাম এর পুত্র আমান উল­াহ। এল,এ শাখার দালাল নামদারী খোরশেদ আলম এর আগেও একাদিক বার একই অপরাধে ভ্রাম্যমান আদালতে সাজা ভোগ করেন।
এ অভিযান চলাকালীন সময়ে চিহ্নিত হোসেন দালাল সহ আরো বেশ কয়েকজন কৌশলে পালিয়ে যায়। সরকারের চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের ভ‚মি অধিগ্রহণ শাখায় একটি সক্রিয় দালাল সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। প্রশাসন এসব দালাল সিন্ডিকেট নির্মুলে এর আগেও একাদিক বার অভিযান পরিচালনে করে বেশকয়েকজন দালালকে সাজা প্রদান করলেও কারাগার থেকে বেরিয়ে এসে পুনরায় এ অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে। এতে প্রকৃত জমি মালিকেরা ব্যাপক হারে হয়রানীর শিকার হচ্ছে বলে জানান ভুক্তভোগীরা। তবে জেলা প্রশাসন এই বিষয়ে কঠোর ভ‚মিকায় রয়েছে বলে জানান কর্তৃপক্ষ।